সাহিত্য শিল্প | Sahitya Shilpa

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
সাহিত্য শিল্প 3আনন্দের fire দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনের তাগিদে যে VF তাতে আরাম থাকতে পারে--কিন্তু আনন্দ নেই । এখানে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের একটি কথা মনে পড়ে । তিনি বলছেন-_'মন যাহা গড়িয়৷ তোলে তাহা নিজের আবশ্তকের wai সাহিত্য যাহা গড়িয়৷ তোলে তাহা সকলের আনন্দের জন্য সাহিত্য মানবজীবনের BACT প্রকৃত রূপালেখ্য। বিধাতার গড়া রহস্যের আবরণ খোলার-_-তার রহস্যময় পর্দাটি তোলার ভার যথার্থ শিল্পীর হাতেই Te থাকে।শিল্পের ক্ষেত্রও ছোট vat পৃথিবীর যতরকম শিল্পধার৷ রয়েছে, সাহিত্য তাঁর শুধু অন্যতম নয়-_সর্বোত্তম ধারাও বটে। শিল্পী যুগপৎ রূপ |B ও Bel | শিল্পীর সষ্টিও তাই সজীব ও রূপবান । সাহিত্য রূপকারের প্রাণ দিয়ে গড় আলেখ্য । এই সাহিত্যকে সত্য হুন্দরের বাজ্ময় প্রকাশও বল হয়। এক- দিকে অনস্ত সৌন্দর্যের রহস্তমধুর প্রকাশের বাহন - অন্যদিকে তেমনি মানব জীবনের নানা অনুভূতির বাহুনও বটে । শিল্পীমন যা দেখলো, যা ARS করলো, যা তাঁর জীবনে আরও-জানার কৌতুূহলকে জাগিয়ে তুললো তাকেই সে ভাষার মাধ্যমে বিভিন্ন সাহিত্য-রূপকল্পের ভেতর দিয়ে প্রকাশ করতে চেষ্টা করে। যা অনির্বচনীয় ছিল তারই বাচমিক প্রকাশটি লাহিত্যরূপ লাভ করে। কিন্তু তার মধ্যে মানবজীবমের অভিজ্ঞতার দিকটি থাকতে হবে। শুধু বাক্‌- সর্বস্ব হলে চলবে না। হাডসন সাহিত্য পাঠের ভূমিকার গোড়াতেই বলেছেন, ‘Literature is a vital record of what m2n have seen in life, what they have experienced of it, what they have thought and felt about those aspects of it, which have the most immediate and enduring interest for all of us. It is thus, fundamentally an expression of life through the ‘medium of language’.সাহিত্য-মীমাংসার ধারায় কাব্য ও সাহিত্য একই অর্থে প্রযুক্ত হয়। প্রাচীন দিনে কাব্য বলতে সাহিত্যকেই বোঝাত। এই সাহিত্যের স্বৰপ ও সংজ্ঞা নির্ধারণের ATH প্রচেষ্টা প্রাচীনকাল থেকেই চলে আসছে। প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য জগতে সাহিত্যের রস ও অলঙ্কার শাস্ত্র গড়ে উঠেছে। সাহিত্য রস- eta কখনও শবার্থ, কখনও রীতি (style), কখনও বাহ্‌ অলঙ্কার, কখনও ধ্বনি, কখনও রসাত্মক বাক্য, কখনও Imitation, কখনও Imagination,



Leave a Comment