নৈ-বিদ্রোহের ইতিকথা | Nou-bidraher Itikatha

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
পলাশীর যুদ্ধে নবাব সিরাজদ্দৌল্লাকে পরাজিত করে ১৭৫৭ সালে ভারতে SANTA WTS হলো এবং তা পুর্ক্ষমতায় বিকাশলাভ করলো বক্সারের যুদ্ধে জয়লাভের মধ্য দিয়ে | ভারতীয় উপমহাদেশ ( বর্তমান পাকিস্তান, বাংলাদেশ, SAT, নেপাল, ভুটান ও সিংহলসহ ) ইংরাজের জাতীয় পতাকা “ইউনিয়ন জ্যাকের' নীচে স্থানলাভ করলো ১৮৪৭ সালে । অর্থাৎ মহান ভারতবর্ষ পরাধীন হলো । “বণিকের মানদণ্ড দেখা দিল রাজদণ্ডরূপে |”ভারতে ইংরাজের বিরুদ্ধে প্রথম সশস্ত্র অভিযান শুরু হয়েছিল সিপাহী বিদ্রোহের মধ্য দিয়ে ১৮৫৭ সালে, স্বাধীনতার বীর সৈনিক মঙ্গল পাড়ের নেতৃত্বে । যদিও তা ব্যর্থ হয়েছে, তবুও সে তার ছাপ রেখে গেছে । এটা নিশ্চিতই জানি, কোন কিছুই বৃথা যায়" না। পেছনে সে ফেলে যায় তার পদ-চিহ্ন। তাই এ সিপাহী বিদ্রোহেরই সাতাশি বছর পরে ( অর্থাৎ ১৯৪৪ সালে ) “রয়েল ইণ্ডিয়ান নেভীর রেটিংর৷ ( নৌ-সৈন্যদের রেটিং বলা হয়ে থাকে) আবার বিদ্রোহ ঘটায়। তারই জের চললে! ১৯৪৫ সালের ১লা ডিসেম্বর থেকে ১৯৪৬ মালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত! ১৮৫৭ সাল থেকে ১৯৪৪ সাল পর্যন্ত--এই দীর্ঘ সময়ের মধ্যে অনেক অনেক আন্দোলন ভারতের বুকের ওপরে ঘটে গেছে। অনেক দেশপ্রেমিক ফাঁসি- কাঠে এবং ইংরাজ ও ইংরাজ-দালালদের গুলিতে শহীদ হয়েছেন। আরও অনেক কিছু wl বলতে গেলে বিরাট বিরাট বই হয়ে যাবে। থাক সে-কথা। শুধু তাদের স্মরণে বলব-_বিপ্লবের সাধনায় সংগ্রামের জয়রথে Ital মুক্তির নিশান উড়িয়ে পরাধীনতার গ্লানি থেকে দেশকে শৃঙ্খল-মুক্ত করার STH স্বাধীনতার বেদীমূলে নিজেদের অমূল্য জীবন উৎসর্গ করে গেছেন, তাদের শত শত প্রণাম জানাই । শহীদদের শ্রদ্ধার্থ্যা নিবেদনের পর সেই নৌ- বিস্বোহের কথাই আবার বলি। কিন্তু কী ছুর্ভাগ্য, সেই নৌ- বিদ্রোহও ব্যর্থ হলো ! তবে, একথা ঠিক,-_এ বিদ্রোহ ব্যর্থ হলেও৬



Leave a Comment