অসুখ | Asukh

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
ভোর রাতে পুলিসে বাড়ি ঘিরে নিল । পুলিস পাছে বাড়ির ভিতর ঢুকে সব কিছু তছনছ করে, সেই ভয়ে তবারক বাইরে বেরিয়ে ধরা দিল | তার অসুস্থ মা হাউ মাউ করে কাঁদতে লাগল। ছোটা ভাইটা কি করবে বুঝতে না পেরে তার আশেপাশে ঘুরঘুর করতে লাগল। তবারক উকিলকে পুলিসে ধরতে এসেছে, সেকথা শুনে অনেক লোক জড়ো হয়ে গেল। তবারক মুখ নিচু করে গিয়ে পুলিসের গাড়িতে উঠল । তবুও ভালো যে ঘটনাটা কালুপুরে হয় নি। তাহলে গাঁয়ের লোকের কাছে তার বোন সুরাইয়ার মাথাটা হেঁট হয়ে যেত | কিছু না, শেষ রক্ষে হয় নি। পুলিস অফিসারদের কথা শুনে মনে হল, কালুপুর, নীলগোলা, সদরে তার বাড়ি, চেম্বার-সম্ভাব্য সব জায়গাতেই পুলিস একসঙ্গে হানা দিয়েছে। তার মানে খিটকেলের আর কিছুই বাকি থাকল A | এর থেকে সারেন্ডার করলেই ভালো হত | এত লোক জানাজানি হত A | তবারক শেষ চেষ্টা করল, 'আপনারা কি আমাকে বেল দিতে পারেন না ?' - “Al, নন বেলেব্ল সেকশন | আমরা বেল দিতে পারি নে ।' রেইড-পাটির নেতা সাব- ইনসপেকটরটি উত্তর দিল aie চলতে শুরু করল। কালাম দারোগা তবারককে একটা চেয়ারে বসতে দিল | দুটো চালান দেখিয়ে বলল, “এই হচ্ছে পাঁচ হাজার করে দশ হাজার টাকার দুটো চালান | বাদল দাসের রিটার্নের সঙ্গে পঁচিশ তারিখে আপনি এই চালান জমা দিয়েছেন | বাদল দাসের কাছ থেকে যে আপনি দশ হাজার টাকা নিয়েছেন এবং পঁচিশ তারিখে তার রিটার্ন জমা দিয়েছেন তা আপনার লেখা এই চিঠি থেকেই প্রমাণিত ay | আপনি বলতেই পারেন, “এই চিঠি আমার লেখা তার প্রমাণ কি ?” আপনার চেমবার থেকে সিজ করা আপনার হাতের লেখার সঙ্গে আপনার এ-চিঠি মিলিয়ে দেখেছি। হ্যান্ডরাইটিং এক্সপার্টের ওপিনিয়নও নিয়েছি। তাতে প্রমাণিত হয়েছে যে আপনিই চালান জাল করেছেন। চালানের ওপর ব্যাক্কের লোকদের যেটা লেখার কথা ছিল সেটা আপনিই লিখেছেন | আপনার দুজন মুহুরিও আপনার হাতের লেখা আইডেনটিফাই করেছে। এরপরে চালান জাল করার জন্য যে সিলগুলি আপনি ব্যবহার করেছেন সেগুলি যদি আমাদের দেন ভালোই, না হলেও আপনার বিরুদ্ধে চার্জশিট হবে। এ ব্যাপারে আপনাব কিছু ৰলার আছে ?....আপনি উকিল মানুষ । সম্মানীয ব্যক্তি। আপনি এরকম জঘন্য কাজ করলেন কেন ?” কেন করল, সেকথা যদি বলতে পারত, তাহলে তো সে অনেকটা হালকা বোধ করত! গ্রামের CRA | তখন সে সবে ল পাস করে এসেছে। কোনো নামকরা উকিল তাকে জুনিয়র নিতে রাজি হল না। বারে নাম লিখিয়ে সে একা-একাই কোর্টে যাতাযাত করতে লাগল | সদরে একটা ঘরও ভাড়া নিল | কিন্তু মক্কেল পেল না | বন্ধুবান্ধবদের পরামর্শে সেল্‌স ট্যাক্স, ইনকাম ট্যাক্স অফিসেও ঘোরাঘুরি শুরু করল | ইনকাম ট্যাক্স অফিসে সে পাত্তা পেল না। সেল্স ট্যাক্স অফিসে দুয়েকটা মক্কেল জুটতে লাগল। Hy মক্কেলদের কাজ সে করতে PICA না। সেল্স ট্যাক্স অফিসের এমনই বীতি, ঘুষ ছাড়া একটা ফরমও কেউ ইস্যু করতে চায় না। তবারক ঘুষ দেয় না। তার Bere হয় না। পরের দিন সে ITA তাকে পাশ কাটিয়ে চলে যায়। তা দেখে বাণিজ্য কর পরিদর্শক জীবন মজুমদার একদিন তাকে ডেকে বলে, 'এই ভাবে চললে তো এখানে আপনি সুবিধা করতে পারবেন না। আপনি অফিসায়দের সঙ্গে আগে HH করুন। তারপর পাটি ধরুন । পাটির কাছ থেকে যা পাৰেম অফিসারদের দিয়ে-থুয়েও আপনার ভালো থাকবে | না, সন্কোচের কিছু GR! সকলেই এরকম BAT | চলুন আমাদের ইনচার্জ সি. টি. ও. প্রদীপ সেনের সঙ্গে AeA আলাণ . করিয়ে দিই ।' জীষন মজুমদার তাকে বলতে গেলে জোর করেই বাণিজ্য কর ভাফিসারের১৭.



Leave a Comment