পরশুরামকুন্ডু ও বদরিকাশ্রম পরিভ্রমণ | Parashuramkunda O Badrikashram Paribhroman

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
পরশুরাম Fe | ৫যায়। সচরাচর নৌকাযোগেই যাত্রীরা চৌথাম গিয়া থাকে। নোকার আঁকার অনুসারে পথ ভিন্ন তিন্ন হইয়া থাকে ; যদি নৌকা বড় হয় তবে উহা কেবল ব্রহ্মপুত নদ উদ্জাইয়৷ চলিতে পারিবে। তাহা হইলে যাত্রী- দিগকে প্রায় sie দিনে চৌথাম পৌছিতে হয়। শ্রোত Cf ব্রহ্মপুত্র দিয়] যাইতে স্বভাবতই নৌকার গতি মন্দ হইয়া থাকে। তৎপর প্রায় অন্ধ পথ গেলেই মধ্যে মধ্যে eats প্রস্তর-সঙ্কুল বাধ পাওয়া যায়। বড় নৌকা ঠেলিয়৷ এ সকল বাধ পার হইতে বহু সময় ব্যয়িত হইয়] থাকে | এই নৌকা বরাবর চৌথাম পৌছে না, কেন ay চোৌখথাম ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে নহে। যাত্রীরা মিশমিথাট নামক স্থানে নোকা হইতে অবতরণ করিয়া প্রায় ৫ মাইল অরণ্যপথে চলিয়া চৌখাম পৌছে কোনও কোনও বড় নৌকার যাত্রী সদিয়৷ হইতে নৌকা রওয়ানা করিয়া হ্থলপথে চুণপুড়া গিয়৷ নৌকায় উঠে; ইহাতে দুই দিনের wa নৌকাপথের ক্লেশ হইতে অব্যাহতি পাওয়া! যায়। কিন্তু see পথ চুণপুড়ার পরে আরম্ভ হয়। যাহারা ছোট নৌকায় Wa করে তাহারা sata উজাইয়া ১৩১৪ মাইল আন্দাজ foray নোয়াদিহিং নদীর মুখে প্রবেশ করিয়া টেঙ্গা- পানি নামক একটি ক্ষুদ্র নদী aie sa) এই নদীর তীরেই চোৌথাম অবস্থিত । অতএব ক্ষুদ্র নৌকার যাত্রীর! বরাবরই চৌথাম পৌছিতে পারে। এই ক্ষুদ্র নদীতেও বাধ আছে । তবে এইওগুলি ব্রহ্মপুত্র নদীর বীধের হ্যায় তেমন ভয়ানক নহে। বড় ছোট ভেদে নৌকার তারতম্য ey কেন? ইহার কারণ আছে। পরশুরাম তীর্থধাত্রীরা প্রায়ই দরিদ্র, অধিকাংশই সাধু সন্নাসী। তাহারা soles জন একত্র etal একখানি erate নৌকার বন্দোবস্ত করিয়৷ তৎসাহায্যে few হইতে চৌখাম অভিমুখে যাত্রা করে। বলা বাহুল্য নৌকাতে তাহারা অবস্থান কমই করিয়া থাকে; নৌকা চলিতে থাকে, তাহারা Sar



Leave a Comment