বিষম বৈসূচন (চিত্তোত্তেজক উপন্যাস) | Bisham Baisuchan (Chittottejak Upanyas)

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
ভ্রাতা ও ভগিনী |Satay ভগিনীকে বড় ভালবাসিতেন,তাহার মন নিতান্তই ফোম ছিল. ভগিনীর চোখে জল দেখিয়া তাহারও চোখে জল আসিল বলিলেন, “দরি, আমি তার সন্ধানে নিজেই ভাজ নইনিতালে যাব-- ভা হলে হবে ত?”দরিয়া ঘ্লানহাসি হাসিয়া বলিল, “তুমি যাবে--আমার সয় কারও কথা বিশ্বাস হয় না। কিন্তু বাবাকে কিছু বলে কাজ নাই 1”“দরকার fo—ay cata কাজের নাম করে যাব। তৃই ভাবি না, আমি ঠিক খবর নিয়ে আম্ছি ।”'“দাদা, নিশ্চয় তার কোন বিপদ্‌ হয়েছে। যদি তাই sx—si হলে তুমি তার সাহায্য করো ।”“আরে পাগলি! আমি কর্ব না ত কে করবে ?”Satay ভগিনীকে টানিয়া লইয়া বাড়ীর ভিতর আসপিলেন | তিনি সেইদিন বৈকালে Meare নইনিতালের দিকে রওনা হইলেন |Satay সন্ধ্যার সময় বীরবিক্রমের বাড়ী আলিয়া দেখিলেনম, বীরবিক্রম ,বাড়ী নাই। বীরবিক্রম যে কোথায় গিয়াছেন, কখন ফিরিবেন,তাহা তাহার একমাত্র“কেটা”তৃত্য কিছুই বলিতে পারিল না।বীরবিক্রম ও Satay উভয়ে প্রায় সমবয়স্ক। কেবল যে যীরবিক্রুম ভগিনীপতি হইবেন বলিয়া পরিচয়, এরূপ নহে, Satara সহিত বীরধিক্রমের আবাল্য বন্ধুত্ব। বীরবিক্তমের চাকর ইহা জানিত। সে সসম্মানে বসিবার ঘর afin দিল। বীরবিক্রমের সহিত দেখা না করিয়া এখান হইতে নড়িব না স্থির করিয়া Satay বসিলেন, পকেট হইতে সিগারেট বাহির করিয়৷ টানিতে লাগিলেন ।'ভক্রমে এক ঘণ্টা কাটল, ছুই খণ্টা কীটিয়। ঠোল, ক্রমে রাষ্পি বেশী হইতে লাগিল; কিন্তু তখনও বীরবিক্রমের দেখা নাই। ইন্জ্রানন্দ ক্রমে



Leave a Comment