শেষ অধ্যায় : ভারতবর্ষের স্বাধীনতা সংগ্রামের কাহিনী (১৯৪৬-১৯৪৮) | Sesh Oddhay : Bharatbarsher Swadhinata Sangramer Kahini (1946-1948)

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
বাংলা মাহিতো নুতন সংযোজন-_ রাজনৈতিক Seatsবাংল। ভাষায় এঁতিহাসিক উপন্যাস বা রোমান্সের জন্ম হয় একো বছরের কিছু আগে যথন বন্ধিমচন্দ্রের দুগেশিনন্দিনী প্রকীশিত হল (১৮৬৫) | বরন্কিমচম্দের পথ অনুমরণ করে AHH দন্ত কয়েকখধানি এঁতিহাসিক উপন্যাস রচনা করেছেন। বন্ধিমচন্দের মানন্দমঠে এতিহাসিক উপন্যাসের মধ্যে দেশপ্রেমের মেটিভের অনুপ্রবেশ ঘটেছিল, রমেশচন্দ্রের দু'খানি উপসন্যাসেও ঘটেছিল । ams পরে আরও কয়েকজন লেখক এতিহাসিক উপন্যাম লিখেছেন। গল্পের কাল, চরিত্র ও আগ্যানবস্ত নির্বাচনে প্রায় কুড়ি বছর কোন উল্লেখযোগ্য পরিবতন ঘটেনি । পরিবর্তন আনলেন চণ্ডীচরণ সেন (১৮৪৫-১৯০৬) কয়েকজন এঁতিহাসিক ব্যক্তির জীবনকাহিনী ও সমকালীন ইতিহাস উপন্যাসের আকারে রচনা করে ( মহারাজা নন্দকুমার (১৮৮৫), দেওয়ান গঙ্গাগোবিন্দ সিংহ, apie রাণী, অযোধ্যার বেগম ) |RIAA শাশ্থবীর বেনের মেয়ে, রাখালদাস নন্দ্যোপাধ্যায়ের কাঞ্চনমাল| এবং সম্পরতিকালে রাচত শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের তুঈভদ্রার তীরে এতিহাসিক উপল্যামের পর্যায়ে পড়ে না, কিন্তু অতীত সমাজ চিত্রের উপ পনের প্রয়াস হিসাবে উল্লেখযোগ্য Adal |এঁতিহাসিক উপন্যাসের ক্ষেত্রে এরপরের পরিবর্তন দেখা গেল শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের পথের দাবীতে । প্রধানতঃ বিশপ্তবীদলের ক্্মীদের কয়েকজনের প্রণয়- কাহিনীর tem ও বর্মায় ভারতীয় সমাজের আংশিক চিত্র হলেও প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়ে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ভারতীয় বিপ্লবীদলের কর্মব্যসুতার সামান্য উল্লেখ রয়েছে এই বইতে । রবীন্দ্নাথের চার অধ্যায়ে বিপ্লবীদলের কথা আছে । চার অধ্যায় বড় গল্প, এতিহাসিক উপস্যাম নয়।রাজনৈতিক উপস্যাল £ এরপর এঁতিহাসিক উপন্যাসের ক্ষেত্রে নৃতন পথ খুলে দিয়েছেন প্রবীণ সাহিত্যিক ননীমাধব চৌধুরী । তার উপন্যাসগুলি ইতিহাসের কোন বিশেষ ঘটনা বা বিশিষ্ট চরিত্র নিয়ে লিখিত নয়, তার উপন্যাসগুলির বিষয়বস্তু আমাদের পঞ্চাশ বছরব্যাপী স্বাধীনতা সংগ্রাম। দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের কাহিনী নিয়ে তিনি উপন্যাস রচনা করেছেন। পঞ্চাশ বছরের মধ্যে এই সংগ্রামের গতি, প্রকৃতি, লক্ষ্যের পরিবর্তন ঘটেছে বহুবার। এ সম্পর্কে আরও স্মরণ রাখতে



Leave a Comment