ডাক্তারকে টাকা না দিয়ে | Dackterka Taka Na Diye

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
&wagwko 8রাস্তার গরম খাবার খেলে নাকি সমস্যা হয় না?: গরম ধোঁয়া ওঠা খাবারে সমস্যা কম হয় কিন্তু নোংরা জলে ধোয়া বাসনপত্রেরমাধ্যমেও জীবাণু আসতে পারে। রাস্তায় খেতে হলে বাসনপত্রও গরম জলে ধুয়ে নিতে BCA) যে সমস্ত খাবার হাত দিয়ে পরিবেশন করা হয় যেমন, ফুচকা, আল্বকাবলি ইত্যাদি একদম খাওয়া চলবে না।কিন্তু এই যে বছর বছর বন্যা হয়, এর মধ্যে কি স্বাস্থ্যবিধি মেনে জীবন ধারণ করা সম্ভব?খুবই অসুবিধে। তবে প্রাণ বাঁচানোর তাগিদে জল ফুটিয়ে খেতে হবে।শুধু ফুটিয়ে নিলেই কি জল পানের যোগ্য হবে?APA বা খোলা FCM থেকে পানীয় জল সংগ্রহ কক্পা হলে তাতে ফিটকিরি দিয়ে সারারাত রেখে দিতে হবে। তারপর ছেঁকে নিয়ে ফোটানোর পর মেশাতে হবে হ্যালোজেন ট্যাবলেট অথবা এক চিমটে র্লিচিং পাউডার। তার আধঘণ্টা বাদে সেই জল খাওয়ার উপযুক্ত হবে। যাঁরা বাড়িতে ফিল্টার ব্যবহার করেন তাঁদের উচিত জল ফুটিয়ে তবে ফিণ্টার করা। অথবা ফিণ্টার করার পর হ্যালোজেন মেশানো। এবং নিয়মিত ফিপষ্টার ক্যান্ডেল পবিষ্কাব করা। কারণ ফিণ্টার কেবল জলে অদ্রবণীয় পদার্থ এবং কিছু ব্যাকটিরিয়াকে আলাদা করতে পারে। এবং অপরিক্ষৃত ক্যান্ডেল বেশি দিন ব্যবহার করলে সেখান থেকে নানা ধরনের জীবাণু সংক্রমণ হতে পারে। টাইফয়েড থেকে পেপটিক আলসার হতে পারে?সঠিক চিকিৎসা না হলে ২-৩ সপ্তাহ পরে TCR ঘা হতে পারে। TSA, কালো পায়খানাও হতে পারে। তবে আজকাল সাধারণত রোগ অতদূর পৌঁছয় না। কিন্তু টাইফয়েড নাকি সহজে ধরা পড়ে না?প্রথম সপ্তাহে ব্লাড কালচার, দ্বিতীয় সপ্তাহে ভিডাল টেস্ট এবং তৃতীয় সপ্তাহে পায়খানা পরীক্ষা করে রোগ ধরা পড়ার কথা। কিছু ক্ষেত্রে সমস্যা হতে পারে। অভিজ্ঞ চিকিৎসকের উপসর্গ চেনার ক্ষমতা সে ক্ষেত্রে কাজে আসে। তবে কিছু আধুনিক পদ্ধতি যেমন ব্যাকটেক পদ্ধতিতে ব্লাড কালচার করলে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই প্রথম ৩ দিনের মধ্যে রোগ ধরে ফেলা ASA!কী উপসর্গ দেখলে বোঝা যাবে রোগটা টাইফয়েড?উপসরগ শুরু হয় অল্প জ্বর এবং কপাল ব্যথা দিয়ে। এরপর ৭-১০ দিনের মাথায় জ্বর বাড়তে বাড়তে ১০৪-১০৫% র মতো BA! সময়ের সঙ্গে জ্বরের বৃদ্ধির যদি গ্রাফ টানা যায় সেটা অনেকটা সিঁড়ির মতো দেখতে SA | এর সঙ্গে থাকে কোষ্ঠবদ্ধতা, খিধে না হওয়া, বমি বমি ভাব বা বমি। ৫ দিনের মাথায় শরীরে ব্যাশ বোরাতে পারে। প্রথমে পেটে। মুখেও বেরোতে পারে। সাধারণভাবে জ্বরের জন্য হাৎস্পন্দন যতখানি বাড়ার কথা তার থেকে কম WG! যেমন, ১০২০ জ্বরের জন্য হাৎস্পন্দন হওয়া উচিত ১১০ এর কাছাকাছি। এক্ষেত্রে হয় do এর আশপাশে। ৬-৭ দিনের মাথায় পিলে বড় হয়। দ্বিতীয় সপ্তাহে হৃৎস্পন্দন স্বাভাবিক নিয়ম মানতে শুরু করে। স্বর ১০১-১০৪" র মতো থাকে। জিভে AR আস্তরণ, গায়ে র্যাস এবং পিলের



Leave a Comment