মধু-বৃন্দাবনে | Mahabanparba

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
ফুণ্ডের পশ্চিম তীর। ঘাটের পাশে রাধাগোপাল ও জগন্নাথদেবের মর্দির।সহযাত্রী চক্রবর্তী, বোসবাবু, সেনবাবু, বৌদি ও জানকী আগেই যাটে এসে গেছে। আমাকে দেখেই চক্রবর্তী বলে ওঠে, “এই যে প্রভু এসে গিয়েছে, একটা কাজ করে দেখি !”আমি প্রভু নই, একজন নগণ্য সরকারী কর্মচারী, স্থতরাং জনসাধারণের ভৃত্য। কিন্তু ভক্ত-বৈষ্ণবদের সঙ্গে মধু-বৃন্দাবন পরিক্রমায় এসে ‘ety’ পদে উন্নীত হয়েছি | ভক্ত-বৈষ্ণবরা প্রত্যেকেই or প্রভু এবং আমি ভক্তিহীন-অবৈষ্ণব হওয়া সত্বেও “al‘ars’ বলে অভিহিত করছেন।কিন্তু সে Staal ছেড়ে তাড়াতাড়ি চক্রবর্তীকে প্রশ্ন করি, “কি কাজ করতে হবে ভাই 9”“তুমি এখানে একটু বসো, আমাদের মালপত্রগুলো পাহারা দাও, আমরা স্নানটা সেরে নিই 1”জামা-কাপড়, ঘড়ি পেন, চশমা ব্যাগ প্রভৃতি যাবতীয় জিনিসপত্র ঘাটের ওপরে SPE বানর-বাহিনী নিকটেই আছে, তারা দুক্ধঘৃষ্টিতে পুণ্যার্থীদের এশ্বর্য দর্শন করছে। Wear একজন শক্তিশালী পাহারাদারের প্রয়োজন । গুরুমহারাজের ভাবী-শিষ্য ভক্তিমান গোবিন্দ চক্রবর্তী আমাকে সেই পদে নিযুক্ত করতে চাইছে ।আপত্তি করার কোন কারণ নেই.। অতএব মাথা নেড়ে বলি, “বেশ তো, আমি তোমাদের মালপত্র পাহারা দিচ্ছি, তোমরা স্নান রে নাও । তোমাদের হলে আমি জলে নামব 1”“ai” সহসা জানকী প্রতিবাদ কবে ওঠে |আমি তার মুখের দিকে তাকাই। সে মুখ খুরিয়ে নেয়। GIGS বলে, “আপনারা ata করে নিন, আমি মালপত্র দেখছি ।”বি. এ. পাশ এই আধুনিকাটি কেন এ বয়সে বন-পরিক্ররমায় লো, এটা আমার কাছে একটা প্রশ্ন হয়ে দেখা দিয়েছিল ৷ মাত্রyo



Leave a Comment