ভারতবর্ষ ও ভারতবাসীর অবস্থা ও কর্ত্তব্য | Bharatbarsha O Bharatbasir Abstha O Kartbya

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
[ @« ]বে গ্রন্বগুলি “স্বামা”, “ভট্টাচ।ধ্য”, “nage”, “etay’, “সাংখ্যরত্ব”, “SS”, “Ae” প্রভৃতি আধুনিক উপাধিধারী মানুষের দ্বারা লিখিত, মেই গ্রন্থসমূহ পাঠ করিলে দেখা যাইবে যে, উহাদের মধ্যে প্রায়শঃ গ্রন্থণণারগণের পাণ্ডিতা-প্রকাশের চেষ্টার চিহ্ন faoata আছে বটে, কিন্তু এ গ্রন্থকারগণ যে বস্তুতঃ অল্পবুদ্ধিবিশিষ্ট wifes মানুষ, তাহার নিদর্শশও এ গ্রন্থগুলির am am ছত্রে প্রকাশিত হইয়াছে । এই agefia বক্তব্য, বিষয়ও খৰষি-মুনিগণের বক্তব্য বিষয়ের অনুরূপ | অথচ, বে যুক্তি-জাল ও প্রযোগ-যোগ্য কর্ম-পদ্ধতির নির্দেশ aly ও মুনিগণের গ্রন্থমমূহের বৈশিষ্ট্য, সেই যুক্তি-জাল ও গ্রয়োগবোগ্য কর্ম-পদ্ধতির নিদর্শন এই গ্রন্থগুলির কুত্রাপি খুঁজিয়া পাওয়া যায় না। ZB, ইহার প্রায় প্রত্যেক গ্রন্থখানি পরম্পর-বিরোধী ( self-coniradic- tory) কণার পরিপূর্ণ। এই শ্রেণীর প্রায় প্রত্যেক গ্রন্বগা'নতে নানাবিধ বিষয়ের আলোচনা উপস্থাপিত করা হইয়াছে বটে, কিন্ত যর প্রত্যেক আলোচনাটিতেই অস্পষ্টতা পরিলক্ষিত হয়। সংক্ষেপতঃ, এই পুস্তকগুলিতে কেবলমাত্র কতকঙগুলি বাক্য-বিন্তাসের sitet *'বিদ্ধনান আছে, অথচ ইহার কোনথানি হইতে কোন বিষয় সম্বন্ধে কোনরূপ WAH শিক্ষা লাভ করা সম্ভব হয় না। ইহাদের ভাষা এবং রচনা-”দ্ধতি অতান্ত বিশৃঙ্খলামূলক। পরস্পরকে হীন প্রতিপন্ন করিয়া স্বকীয় পাণঞ্ডিতোর প্রতিষ্ঠা করার প্রবৃত্তি ইহাদের প্রণেতাগণের সর্বাপ্রধান, বৈশিষ্ট্য উপরোক্ত চারি শ্রেণীর গ্রন্থের তুলনামূলক বিচারে প্রবৃত্ত হইলে বলিতে হয় যে মানুষ কি করিয়া ees “মনুদ্বা-নামের যোগ্য হইয়া বাক্তিগতভাবে সর্ব্ববিধ অবস্থায় সর্বতোভাবে স্থখের আস্পদ হইতে পারে «বং "কোন্‌ বিধিতে সমাজ সংগঠিত হইলে, প্রতোক মানুষটা অর্থাভাব, স্বাস্থ্যাভাব, অশান্তি, BAe, অকালবার্ধক্য ও অকালমৃত্যুর হাত হইতে রক্ষা পাইয়া একমাত্র স্বকীয় ব্যক্তিগত কর্মকেই স্ব স্ব স্থথ-দুঃখের sb দায়ী করিতে



Leave a Comment