বর্ধমান পরিক্রমা | Bardhaman Parikrama

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
২ বর্ধমান পরিক্রমাজৈন “আচারাঙ্গ” সূত্রে বর্ধমানতুক্তিকে FT ভূমি বলা হয়েছে। ভুক্তি অর্থে প্রদেশ। মহাভারতের প্রসিদ্ধ ভাষ্যকার Ness Ha প্রদেশকে রাঢ়দেশ বলেছেন। এঁতিহাসিক স্মিথ History of India গ্রন্থে অশোকের রাজত্বকে সুদূর বর্ধমান পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল বলে উল্লেখ করেছেন। বস্তুতঃ বর্ধমান যে গুপ্ত সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত ছিল তার aK নিদর্শন ছড়িয়ে রয়েছে। গুপ্ত যুগের মুদ্রা, শিলালিপি, মুর্তি প্রভৃতি a জিনিষ বর্ধমান জেলার গ্রামাঞ্চল-- ভাতাড়, মঙ্গলকোট, আউসগ্রাম, গলসী, মশাগ্রাম প্রভৃতি স্থান থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। হর্ষবর্ধনের আমলেও বর্ধমান কোটির উল্লেখ পাওয়া যায়। শশাঙ্কের আমলের অনেক নিদর্শনও বর্ধমানের গ্রামাঞ্চল থেকে পাওয়া গেছে। দশম শতকের ইর্দালিপিতেও বর্ধমান ভুক্তির উল্লেখ পাওয়া যায়। নবম শতাব্দীতে অস্তমিত পালরাজ গৌরবসূর্য মহারাজ কান্তিদেব সেই যুগের বর্ছমানপুরীর রাজা ছিলেন। পালবংশের পতনের মুখে সদগোপ বংশজাত ইছাই ঘোষ বর্ধমানে সপরাক্রমে রাজত্ব করেছিলেন। কাকসার জঙ্গলে শ্যামারূপার গড়, ইছাই ঘোষের দেউল-খ্যাতির নিদর্শন হয়ে সাক্ষ্য দিচ্ছে। অমরারগড়ের প্রাচীন রাজবংশের পূর্বপুরুষ ভালকিতে রাজত্ব করতেন। পাগডুরাজার টিবিতে যে সব পুরাকীর্তি পাওয়া গেছে তা থেকে অনুমান করা যায় যে, বৌদ্ধ সভ্যতার জ্ঞানগরিমায় বর্ছমান সে সময় উদ্ভাসিত ছিল।সভ্যতা ও ওঁতিহ্যরাঢ়ের মধ্যমণি বর্ধমান তাই প্রাচীন। বঙ্গাব্দ ১৩০৮ সালে দুর্গাপুরের দক্ষিণদিকস্ব দামোদর নদের তীরে একটি প্রচীন সভ্যতার ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গিয়েছে। বিখ্যাত emia ননীগোপাল মজুমদার এঁ স্থানের ভূপৃষ্ঠ অনুসন্ধান করে এই প্রাচীন রাঢ়ের সভ্যতা সম্পর্কে আলোকপাত করেছিলেন। এই ঘটনার বিশ বৎসর পরে দুর্গাপুরের সম্নিকটে মৃত্তিকা গর্ভ হতে Ay প্রাচীন নিদর্শন আবিষ্কৃত হয়েছে। তা থেকে বলা যায় বর্ধমানের সভ্যতা পাঁচ হাজার বছরের প্রচীন। সভ্যতা ও সংস্কৃতির একটি বহির্বিকাশ থাকলেও প্রধানতঃ এটি আত্মনিষ্ঠ। সংস্কৃতি হলো স্বভাবের সংস্কার, জীবন ধারার বিবর্তন। বহমান জীবনশ্রোতে যে ভাব-ভাবনা ও ধ্যান ধারণার স্বরপোলব্ধি-তারই অনুগামী হল এই সংস্কৃতি, এই সভ্যতা। একটি দেশ ও জাতির আত্মানুসন্ধানে এর স্থিতি, আত্মবিস্মরণে এর মৃত্যু। রামায়ণের আদি কবি বাল্মীকি বা নৈমিযষারণ্যের মুনিগণ যে স্থানে তপনশ্চর্যায় নিযুক্ত ছিলেন, Rear শঙ্করাচার্য যে পর্ণকুটিরে বেদাস্ ব্যখ্যা করেছিলেন, কিন্তা ভগবান তথাগত যে বোধিবৃক্ষের নীচে মোক্ষলাভ করেছিলেন-একি শুধু গল্প বা Story? হিমালয়ের গুপ্ত গুহায় কৌগীন সম্বল ভস্মমাখা সন্ন্যাসীদের ইউরোপ Rat করতে পারে- কিন্তু ভারতের এঁ হলো অন্তরাত্মা, জীবনধর্ম। রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, ভারতবর্ষকে প্রত্যক্ষ করতে হলে এই সভ্যতা ও সংস্কৃতির পরিচয় সম্পর্কে সম্যক উপলব্ধি চাই।



Leave a Comment