কুমারেশ ঘোষের হাসির গল্প | Kumaresh Ghosher Hasir Galpa

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
* কুমারেশ ঘোষের হাসির গল্প *তখন শীতকাল । একদিন দেখা গেল Way একটা ভাল ফ্লানেলের পাঞ্জাবী গায়ে দিয়ে স্কুলে এসেচে । ক্লাসে বিশে যথারীতি তার পাশেই বসে ছিল, জামাটা বোধকরি লক্ষ্য করে দেখলো, সেটায় পুরোন সেলাই খোলার দাগ! এবং দেখামাত্রই তার মাথার পোকাগুলেো কিলবিল করে উঠলে! ৷ জিগ্যেস করলো, এ জামাটা নোতুন কর্লি বুঝি !-_সেই পরের হাঁড়ির খবর নেওয়া |HAZ বললো, না পাঞ্জাবীটা বাবার ছিল, আমি কেটে ছোট করে নিয়েচি।শুনে বিশে শুধু বললে-_অ!আর একদিন |দেখা গেল AA একটা সার্জের কোট পরে এসেচে cat দামী |বিশের আবার লেই যথারীতি প্রশ্নঃ বা বেশ কোট তো ? নতুন করালি বুঝি ?অমলু বললো, এটাও বাবার ছিল, ছোট হয়ে গেছলো, তাই কাটিয়ে আমার মাপের করে নিয়েচি!বাঁ, বেশ তো [বিশে সঙ্গে সঙ্গে Fate দিলো, তোর বাবা বেঁচে থাকতেই দিব্য তো পৈতৃক সম্পত্তি ভোগ করচিস্‌। বেড়ে আচিস্‌।শুনেই অমলু কেমন ABS হয়ে গেল৷ আমরা! বেকায়দা বুঝে তাড়াতাড়ি «ace দিলাম বিশেকে : কী হচ্ছে ইয়াকি ! ও যদি ওর বাবার জিনিস পরে, তো তোর চোখ টাটাবার কি আছে রে !উত্তরে বিশে শুধু বললে, সরি, ভুল হয়ে CATH |আরো! কয়েকদিন পর |অমলু ক্লাসে এলো হাফপ্যান্ট পরে। অবশ্য হাফপ্যান্ট সে১২



Leave a Comment