জ্যোৎস্নার খেলা | Jotsnyar Khela

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
BE তে, আমি বললাম, হেল্প করার কি আর ate ছিল মা।পরের উপকার করতে তোর মতন আমরাও সব সমযঙ্ল রাজী । কিন্তু কার উপকার করব, কাকে সাহায্য করব, সেটা ভেবে দেখতে ইবে না|! এটা অন্ধ মানুষ Atel পার হতে পারছে না । হাতে ধরে তাকে রাস্তা! পার করে দেব, বুড়ে৷ মানুষ বাস-এ বা ট্রেনে উঠতে পারছে না, তাকে যেমন করে হোক গাড়িতে তুলে দেব-_ভিকিরি গাছতলায় শুয়ে না খেয়ে মরছে--যে য র বাড়ি থেকে ভাত রুটি দিয়ে হোক বা নিজেরা Brel তুলে হোক, সাহায? করব। এটা আমাদের ডিউটি । এখানে তে। তা নয়! জানি না, চিনি না-- এর আগে কোনদিন চোখে দেখলাম না--যেহেতু গায়ের রঙট1 টকটক করছে, যেহেতু একটা দামী গাড়ি থেকে নামল, যেহেতু চোখ-ঝলসান ম্যাক্সি পরনে, যেহেতু পিণ্ট্র বড়লোক জেঠার বাড়িতে ঢুকছে--বাস, অমনি রাজকন্যার সাভিসে লেগে গেলাম |আমাদের বলা শেষ হবার পর বাবলা তার সাদা Wits আর একবার হাদল | বলল, সাভিদ আর তেমন কি, ফটকটা খুলে দিলাম, আর Acs দুটো বাড়ির ভেতর পৌছে দিলাম।হুঁ, তা তো দিলিই, কত বকশিশ পেলি শুনি ? মণ্ট, নতুন কবে বলে উঠল | মিলল কিছু বকশিশ !বকশিশ আবার কি, একট! হাই তুলে বাবলা বলল, এইটুকুন উপকার কি ও আমাদের কাছ থেকে আশা করতে পারে না! নতুন এসেছে |না, পারে না। গলম্ভীরভাবে শোভন বলল, ওসব বাবু মেয়েদের আমরা অনেকদিন আগেই চিনে গেছি। উপকারের কথা ওরা মনে রাখে না। তুই কি আজ আমাদের নতুন করে ওদের চেনাচ্ছিদ।না না ঠাণা গলায় বাবলা আমাদের আশ্বাস দিল, আর পাঁচটি১১৬



Leave a Comment