বাংলা কথাসাহিত্য প্রসঙ্গ | Bangla Kothasahitya Pasanga

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
করিবেম 1...কাব্য নাটক উপন্যাস দুই এক বংসর ফেলিয়া athe তারপর লংশোধন করিলে বিশেষ উৎকর্ষ লাভ করে,” ( 'প্রচার' মাঘ, ১২৯১)। বস্তুত afro একথা মনে প্রাণে বিশ্বাস করতেন। যদিও নিজে নব্য লেখক নন, তবু তার মত প্রতিভাবান্‌ লেখকও এই নির্দেশ মেনে চলতে চাইতেন । কিন্ত দুঃখের বিষয় পত্রিকার নিয়মিত লেখকের পক্ষে এই নিয়ম ঠিকমত মেনে চলা প্রায় অসম্ভব । বস্কিমচন্দ্রের পক্ষেও সম্ভব হয় নি। তিনি পূর্বোক্ত প্রসঙ্গে নিজের অস্তুবিধার কথা উল্লেখ করেছেন £ “যাহারা সাময়িক সাহিত্যের কার্যে ব্রতী, তাহাদের পক্ষে এই নিয়ম রক্ষাটি ঘটিযা উঠে না] । এজন্য সামযিক সাহিত্য, লেখকের পক্ষে অবনতিকর।” sey একথা যখন লিখছেন, তখন একমাত্র 'সীতারাম” ছাড়া (সেটি তখন প্রচারে” বেরুচ্ছে) তাঁর আর সব উপন্যাসই ব্গদর্শনের পৃষ্ঠায় প্রকাশিত হযে গেছে। সামযিক পত্রের যতই নিন্দা THT, তখন আর সেই “Ga সংশোধনের উপায় নেই |যাই হোক, কোন উপন্যাসের প্রথম মুদ্রণ বঙ্গদর্শনে সেটি প্রকাশের প্রায় অব্যবহিত পরেই হবার ফলে, সেখানে পরিবর্তন বা সংশোধনের স্থযোগ তেমন ছিল না। তাই দেখতে পাই, বঙ্গদর্শনে প্রকাশিত অংশ থেকে প্রথম সংস্করণের গ্রন্থে বড়ো রকম পরিবর্তন তেমন বিশেষ কোথাও হযনি। কিন্তু বন্কিমচন্দরের শিল্পিমনম ছিল সদা-অতৃপ্ত। তাই কোন উপন্যাসের “বর্তমান” রূপ কখনই তার মনোমত VSAM) সব সময়েই তাকে কীভাবে আরও সু Par রূপ দান করা যায়, সেকথাই feel করতেন । 'নব্যলেখকদের প্রতি নিবেদন? প্রসঙ্গে কখিত নিয়ম অবিকল রক্ষা করা তার পক্ষে সম্ভব না হলেও প্রকারাস্তরে যথাসম্ভব তা মেনে চলেছেন চিরকাল । অথাৎ বঙ্গদশনে প্রকাশেব আগে কিংবা প্রথম বা দ্বিতীয় সংশোধন তেমন না হলেও, তৃতীয় চতুর্থ বা পঞ্চম সংস্করণে লেখক ধীরে Ae উপন্যাসের আমূল পরিবর্তন ঘটিয়েছেন ।এগদশনে প্রকাশিত বন্কিমচন্গদ্রের উপন্যাসগুলির মধ্যে দুখানি উপন্যাসের প্রথম গ্রদ্ধাকারে প্রকাশকালেই বড়োরকম পরিবর্তন ey) সে দুখানি হল 'চন্দ্রশেখর' ও রজনী” | চন্দ্রশেখরে”র বিজ্ঞাপনে লেখক লিখেছেন : “চন্দ্রশেখর প্রথম বঙ্গদশনে প্রকাশিত হইযাছিল। কিন্তু এক্ষণে ইহার অধিকাংশ পরি- afes হইয়াছে। অনেকাংশে পরিত্যাগ করা গিয়াছে এবং কোন কোন স্থান পুনর্বার লিখিত হইয়াছে ।” দৃষ্টাস্তস্বরলপ বলা চলে, AMET প্রকাশিত অংশে কোন খণ্ড বিভাগ ছিল না। প্রথম সংস্করণে গ্রন্থটি উপক্রমণিক৷ বাদেa



Leave a Comment