আজাদ হিন্দ ফৌজের কোর্ট মার্শাল ও গণ-বিক্ষোভ | Azad Hind Faujer Court Marshal O Gana-bikkhobh

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
একে কি-ভাবেই বাঁ AEs করা হবে ইত্যাদি নানা আনুষঙ্গিক বিষয় স্থির করবার জন্য সম্মেলন থেকে দুইটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছিল। প্রথম সিদ্ধাস্ত অনুযায়ী ক্যাপ্টেন মোহন সিংকেই আজাদ হিন্দ ফৌজের প্রধান সেনাধ্যক্ষ হিসাবে নিযু্ত করা হয়েছিল | কিছু ফৌজের সদস্য সংগ্রহ, রসদ এবং অস্ত্রশস্ত্র সরবরাহ এবং ব্যয় নির্বাহ প্রভৃতি প্রধান প্রধান কাজের দায়িত্ব ইন্ডিয়ান ইন্ডিপেনডেন্স লীগের উপরেই ন্যস্ত করা হয়েছিল। সিদ্ধান্তে এ-কথাও বলা হয়েছিল যে জাপ সরকার আজাদ হিন্দ ফৌজকে বিভিন্ন সমরোপকরণ দিয়ে যাতে পূর্ণভাবে সহযোগিতা করেন সে-বিষয়ে কেবলমাত্র লীগই জাপ-সরকারের সঙ্গে কথাবার্তা চালাতে পারবেন | আরও স্থির হয় যে GA সরকার আজাদ হিন্দ ফৌজকে লীগের পরামর্শ অনুযাযী নানাভাবে সাহায্য করলেও এই বাহিনীর পরিচালনা ও নিযঞ্ত্রণ ব্যাপারে পূর্ণ কর্তৃত্ব একমাত্র ভারতীয়দের উপরেই বর্তাবে। অর্থাৎ সাহায্যদানের অছিলায় জাপান তথা অন্য কোন বিদেশী শক্তি যাতে আজাদ হিন্দ ফৌজকে কুক্ষিগত করতে না পারে সেই ব্যাপারে প্রথম থেকেই যথোচিত সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছিল।ব্যাঙ্কক সম্মেলনে গৃহীত প্রথম সিদ্ধান্তে আজাদ হিন্দ ফৌজকে নিয়ন্ত্রণ করার দায়িত্ব ইন্ডিযান ইন্ডিপেনডেন্স লীগকেই দেওযা হয়েছিল | সম্মেলনে গৃহীত দ্বিতীয় সিদ্ধাস্তে স্থির হয় যে এই দায়িত্ব পালন করবার জন্য লীগের ভিতরেই একটি স্থায়ী কর্ম পরিষদ (Council of Action) গঠন করা হবে। এই পরিষদে রাসবিহারী ও মোহন সিং সমেত মোট চার জন সদস্য গ্রহণ করা হয়েছিল। রাসবিহারীকে কর্মপরিষদের সভাপতি হিসাবেও নির্বাচিত করা হয়েছিল | এখানে বলা দবকার যে আজাদ হিন্দ ফৌজের নীতি নির্ধারণ ব্যাপারে পূর্ণ দায়িত্ব ইন্ডিয়ান ইন্ডিপেনডেন্স লীগ নামক একটি অসামরিক সংগঠনের কর্মপরিষদের উপর ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্তটি বিশেষ রকম তাৎপর্যপূর্ণ ছিল | এতদ্দ্বারা স্পষ্ট বোঝা গিয়েছিল যে ভারতবর্ষের মুস্তিসংগ্রাম শুরু করার জন্য আজাদ হিন্দ ফৌজের মত একটি সামরিক বাহিনী গঠন করা হলেও 'এই বাহিনীর 'পরিচালন ভার অসামরিক কর্তৃপক্ষের উপরেই ন্যস্ত করা অধিকতর যুক্তিযুস্ত বলে মনে করা হয়েছিল। অবশ্য এই রকম বন্দোবস্তের ফলে মোহন সিং-এর মত উচ্চশাসম্পন্ন als আদৌ খুশি হতে পারেন নি। মোহন সিং ইন্ডিয়ান ইন্ডিপেনডেন্স লীগ বা তার অস্তর্গত কর্মপরিষদকে পাশ কাটিয়ে আজাদ হিন্দ ফৌজের সর্বময় কর্তৃত্ব আপন হাতে কেন্দ্রীভূত 'করতে চেযেছিলেন। এই রকম ব্যক্তিগত উচ্চাশা পূরণ করবার জন্য তিনি জাপ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে একটি গোপন বোঝা পড়াও করে নিয়েছিলেন এবং এই বোঝাপড়ার প্রতিদান হিসাবে তিনি জাপ সরকারেয় চাহিদা মত আজাদ হিন্দ ফোঁজের Gas সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবীকে ইন্ডিয়ান ইন্ডিপেনডেন্স লীগ বা



Leave a Comment