সাহিত্য চিন্তা | Sahitya Chinta

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
সাহিতা-চিত্তাকিছু বুদ্ধিমান কল্পনাশীল মানুষ কতকগুলো সামা ধারণ এবং সিদ্ধান্তে Alon ; তারপর সেই সব ধারণা-সিদ্ধান্তের ওপরে নির্ভর ক'রে জীবন" পরিচালনার প্রয়োজনে তারা মেই আংশিক জ্ঞানে পূর্ণতা! আরোপ করে। তাদের তারা নিত্যগত্য ব'লে মানে এবং নানা প্রকরণপদ্ধতির সাহায্যে আপন আপন গোটীর বাকী মানুষদের মানায়। মানমুষী বুদ্ধি এবং অভিচজ্ঞতাই যে এসব প্রত্যয়ের একমাত্র উৎস, এ কথা জানতে পারলে পাছে অন্ত মানুষেরা তাদের যাথার্থ্য সম্বন্ধে প্রশ্ন তোলে, তাই তাঁর মেসব প্রত্যয়কে কোন অতিপ্রাকৃত শক্তির নির্দেশ ব'লে চালাবার চেষ্টা করে। অভিজ্ঞতালন্ম ধারণীর ওপরে মেকা THAI weal চাপিয়ে আরোহা বুদ্ধির মনে সন্ত্রাস জাগাবার চে সভ্যতার ইতিহাসে অতি প্রাচীন ও পৌনপুনিক ঘটন|। এই Seal যাঁর প্রতাক, তার সমন্ধে বেশী প্রশ্ন করলে ধড় হতে Feo খসে পড়তে পারে-_প্রাচীন তারতের এক তথাকথিত aus aly একদিন এজতীয় ভয় দেখাতে কুষিত হন fal মুশা হতে মহন্মদ, Wa) হতে যীশু, স্রেফ মানুষ হিসেবে মানুষের কাছে এঁরা কেউই নিজেদের বক্তব্য উপস্থিত করেন নি। এরা কেট বা ব্রম্মজ্ঞানী, বেউ বা ঈশ্বরানগৃহীত AH, আবার কেউবা খোদ ঈশ্বরের সম্ভান।কিন্তু আংশিক জ্ঞানকে আগুবাক্য বলে মেনে নেওয়াই যদি মানুষের একমাত্র বৃত্তি হ'ত, তা হলে দর্শন-বিজ্ঞান, সাহিত্য-মমাজ- প্রতিষ্ঠান, এক কথায় মানুষের সাংস্কৃতিক জীবনের কোন বিকাশ সম্ভব হ'ত না। মানুষ যেমন আংশিক ধারণাকে SAIS) ব'লে মেনেছে এবং মানিয়েছে, তেমনি তারই সঙ্গে সে ধারণার WAT সম্বন্ধে AAA হয়েছে। সে ধারণাকে নিত্য-নূতন অভিজ্ঞতা এবং চিন্তার ক্টিপাথরে যাচাই করতে চেয়েছে। তাঁর জন্যে তাকে দাম দিতে হয়েছে বিস্তর বিশ্বাসের বাড়া শাস্তি নেই, আর অবিশ্বাসের বাঁড়া অশান্তি cra তবু দাম দিতে সে গররাজী হয় নি ঝলেই মানুষের জ্ঞান পারমেনিদেদ,৮



Leave a Comment