বেদের পরিচয় | Beder Parichay

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
ভূমিকা[দ্যার মন্মখথনাথ মুখোপাধ্যায় কর্তৃক লিখিত ]হিন্দুজাতির ও হিন্দুধর্বের এই যুগ-সন্ধিক্ষণে “বেদের পরিচয়” এর আবির্ভাব মহা মঙ্গলের হুচনা। এই মহামূল্য aca ভূমিকা রচনা TRA মাত্র। অত্যৃজ্জল হীরকখণ্ডের পরিচয় দিবার aay সুঁমিকার প্রয়োজন হয় না। তথাপি এই গ্রন্থখানির ভূমিকা লিখিবার ভার আম!র উপর অপিত হইয়াছে। আমি অধীত-শাস্থব নহি, সুতরাং " “বেদের পরিচয়”এর কোনও পাণ্ডিতাপূণ পরিচয় দিবার সাধ্য আমার নাই। তবে বেদের আবিভাব ও মহ্মি| সমন্ধে চিন্তা! করিতে গিয়া যাহা আমার মনে আসিতেছে we লিখিতেছি।ATA জগৎ অন্ধকার-সমাচ্ছন্ন। অজ্ঞানতার পনঘোর মহানিশার RTS সমুদয় জীব-জগৎ Tea অভিভূত | সহসা প্রাচ্যদিক- BHT অরুণাত হইয়! উঠিল। সারা জগতের পবিত্র-তীর্থণ এই ভারতের AT) পঞ্চনদের তীর হইতে গভীর উদাত্তস্বরে শাশ্বত প্রশ্ন উচ্চারিত হইল--“কম্মৈ দেবায় হ্বিষা বিধেম”কে সেই দেবতা ? কাহাকে হবি প্রদান করিব ?চিরন্তন প্রশ্ন! ভারতের আকাশ বাতা কম্পিত করিয়া--পঞ্চনদের বক্ষ মধিয়া--এই প্রশ্ন হিমালয়ের sary sare ধ্বনিত প্রতিধ্বনিত হইয়া ফিরিতে লাগিল । ভারতের বুকে এই প্রশ্ন প্রথম জাগিয়াছিল কে গেই দেবতা, কাহাকে পুজা! করিব ? বিশ্বমানবের এই আকুল জিজ্ঞাসা সর্বপ্রথম Chas হইল যে পুণ্যতীর্থে, সেইথানেই মিলল ইহার উত্তর ও ইহার সমাধান? এবং এই অভিনব আবিষ্কারের তীব্র আননো যাহাদের দেহের শোশিত-প্রবাহ্‌ রক্তিমরাগে রঞ্জিত হইয়া



Leave a Comment