গজেন্দ্রকুমার মিত্রের গল্প-সঞ্চয়ন [সংস্করণ-১] | Gajendrakumar Mitrer Galpo-sanchayan [Ed. 1]

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
HEH নবগোপাল AICS মাঝে আমাকে তাগাদা করে বটে, 'আমার চাকরীর কাঁ হ'ল মেশোমশাই ? কিন্ত খুব যে তাড়া আছে, তা মনে হয় না।অবশেষে আমার গৃহিনী একদিন খবরটা দিলেন, “ওগো শুনছ, আমাদের aaa সত্যিই অঙ্কে খুব মাথা ।“কেন, কী করে জানলে 1?”“আমাদের ছোট থোকার মাথায় বুদ্ধির we কিছুতে ঢুকত না ত, মাস্টার মশাই ত হিম-সিম থেয়ে হাল ছেড়ে দিয়েছিলেন । নবগোপাল তিন দিনে ওকে কেমন শিখিয়ে দিলে । এখন বেশ বুঝে CACHE: NS] ওকে আবার লেখাপড়া শেখালে হয় না 1ইচ্ছে হ'ল কথাটা মনে করিয়ে দিই, এমন বিনা মাইনের চাকরটিকে স্বেচ্ছায় হাত-ছাড়া করতে চাইছ কেন ? লেখাপড়া শিখলে কি আর এই ভাবে থাকবে ? কিন্তু নিজে নিজেই লজ্জিত হলুম--আমার স্বার্থের জন্য ওর এত বড় ক্ষতি করি কেন? আর চিরদিনই কিছু এম্‌নি পেট-ভাতায় আমার বাড়ী থাকবে a বয়স বাড়বে, নিজের সংসার পাতবার ইচ্ছে হবে, উন্নতির পথ খু জবে।ওকে ডেকে বললুম, “তোমার মাসিমার ইচ্ছে তোমাকে আবার ইস্কুলে দেয় ।”মুখ উজ্জ্বল হয়ে উঠল ওর-_তবে সে নিমেষের জন্য। পরক্ষণেই ফ্লানমুখে বললে, “এই বুড়ো বয়সে গিয়ে ক্লাস এইট-এ ঢুকব! বাকী ছেলেরা গাষ্টা করবে !আমি বললুম, ‘a না তোমাকে দেখায় ছোট-_আসল বয়স না বললে বুঝতেই পারবে না। বেশ মানিয়ে যাবে”শেষ পর্যন্ত মে আনন্দের সঙ্গেই রাজী VA তবে আমি তখনই তাকে Faq OFS করলুম না_বললুম, “ক্লাস এইট-এর বই ত বাড়ীতেই আছে দুপুরে পড়ে ঝালিয়ে নাও, আমি একেবারে ক্লাস নাইনে ভতি ক'রে দেব !*পড়ায় তার সত্যিই চাড় ছিল, মাস-তিনেকের মধ্যেই সে এমন তৈরী হয়ে নিলে যে অনায়ামে তাকে ক্লাস নাইনে ভর্তি ক'রে দেওয়া গেল |4



Leave a Comment