তন্ত্রকথা | Tantrakatha

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
১৫ ত্্ত্রকথাস্কৃত ও পরিবরতিত না হইয়াছে, এমন নহে। তবে কতকগুলি wH ! অপেক্ষাকৃত আধুনিক যুগে রচিত হইয়াছিল, তাহাও নিশ্চিত | তন্ত্র-প্রামাণ্য THAT A তান্ত্রিক আচার যত প্রাচীনই হউক-না কেন, ইহার প্রামাণিক সম্বন্ধে অতি প্রাচীনকাল হইতেই বিভিন্ন মতের অস্তিত্বের পরিচয় পাওয়া যায় তান্ত্রিক আচার্ষযগণ ইহার প্রামাণ্য স্থাপনের জন্য ইহার বৈদিকত্ব ও অপোকরুষেয় প্রতিপাদন করিতে প্রচুর চেষ্টা করিয়াছেন। কেবল তন্ত্রের প্রামাণিক আলোচনার জন্যই একাধিক গ্রন্থ রচিত হইয়াছিল ৷ ইহাদের মধ্যে যামুনাচার্য-কব “তন্ত্রপ্রামাণ্য) বেদোত্তম-কৃত 'পাঞ্চরাত্রপ্রামাণ্য, বেদাস্তদেশিকাচার্য-কব 'পাঞ্চরাত্র-রক্ষ ও ভট্টোজি দীক্ষিত-কৃত “তন্ত্রাধিকারিনির্ণয়' বিশেষ উল্লেখযোগ ইহা ছাড়া AIT গ্রন্থমধ্যে প্রসঙ্গক্রমে ভাস্কররায়, লক্ষ্মীঘর প্রভৃতি এই বিষ: আলোচন। করিয়াছেন। এই আলোচনার একটি বৈশিষ্ট্য এই যে, প্রত্যেবে নিজ নিজ সম্প্রদায়ের প্রামাণ্য স্থাপন করিয়া অপর মম্প্রদায়গুলিকে অপ্রম বলিয়া নির্দেশ করিয়াছেন। তাই পাঞ্চরাত্র গ্রন্থে শাক্তের নিন্দা ও “hee পাঞ্চরাত্র-নিন্দ। বহুল পরিমাণে দেখিতে পাওয়া যায়। এক সম্প্রদায়ের গ্রে মধ্যেও আবার তদ্স্তর্গত উপ-সম্প্রদায় ও শাখার নিন্দাও প্রচুর পরিমাণে কর হইয়াছে । কৌলমার্গাবলদ্বিগণ সময়মার্গের, সময়মার্গাবলদ্বিগণ কৌলমার্গেব পশ্বাচারিগণ কুলাচারিগণের, কুলাচারিগণ পশ্থবাচারিগণের ভূয়োভূয়ো নিন করিয়াছেন। এইরপ নিন্দার সুচনা আমরা প্রাচীন গ্রন্থেই দেখিতে পাই। প্রাচীন বো ও জৈন গ্রন্থে মে স্থলেই তান্ত্রিক আচার উল্লিখিত হইয়াছে, সে স্থলেই ইহা ¢ নিন্দনীয় তাহ। প্রতিপাদন করিবার চেষ্টা কর] হইয়াছে। বৌদ্ধগ্রন্থে অনেঃ স্থলে ইহা HSS বা দুষ্কৃত নামে অভিহিত হইয়াছে। পুরাণে, এমনকি কোনে কোনো Vege স্পষ্টতই তঞ্তরের নিন্দাবাদ উদ্ঘোষিত হইয়াছে | পুবাণাদিগ্রন্থে কেবল তন্ত্রনিন্দাস্থলেই যে MTs অবৈদিক ও cant বলা হইয়াছে, তাহা নহে। বিভিন্ন উপাসনা-পদ্ধতির উলদ্লেখপ্রঙ্গেং



Leave a Comment