মাতৃ-মন্ত্র | Matri Mantra

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
১৪ মাতৃ-মন্ত্রভক্ত, আশা করিতেছেন ইহার পর লাধনা পূর্ণ হইলে সিদ্ধি আসিবেই। তখন দেখা যাইবে “দিগৃভুজা, নানা প্রহরণধারিণী শত্রুমজ্দিনী, Trews বিহারিণী--দক্ষিণে লক্ষ্মী ভাগ্য রূপিণী, বামে বাণী বিদ্যাবিজ্ঞান মুত্তিময়ী, সঙ্গে বলরূপী কাত্তিকেয় কাধ্যসিদ্ধিরূপী গণেশ--” সেই কালম্রোতে দেখিলেন “স্বর্ণ wal বঙ্গপ্রতিমা।”তখন ভক্ত ডাকিতেছেন, অস্তরের নিবিড় কন্দর হইতে স্বর উঠিতেছে, ''সর্ব্মঙ্গলমঙ্গল্যে শিবে, আমার atte সাধিকে! অসংখ্যমস্তানকুলপালিকে ! ধর্ম, অর্থ, we, দুঃখদার়িকে ।:.....এসো মা ! নবরাগরঙ্গিণি! নববলধারিণি নবদর্পেদপিশণি, নবষ্বপদশিনলি ! এসো মা গ্হে এসো” ছয় কোটি সম্ভান একত্রে, এক কালে, দ্বাদশ কোটি কর জোড় করিয়৷ তোমার পাদপদ্ম পূজা করিব। ছয় কোটি মুখে wifes, “মা প্রস্থতি অদ্বিকে ! ধাত্রি, ধরিত্রি ধনধান্যদায়িকে | ants শোভিনি! নগেন্দ্রবালিকে ! শরৎস্থন্দরি চারুপুর্ণচন্দ্রভাসিকে ! : শত্রুবধে 'দশভুজে দশপ্রহরণধারিণি! Swe) অনস্তকাল-স্থায়িনি! শক্তি দাও সম্ভানে অনন্তশক্তিপ্রদায়িনি ” তোমায় কি বলিয়া! ডাকিব মা! এই ছয় কোটি মুণ্ড এ প্যপ্রান্তে লুষ্ঠিত করিব,--এই ছয় কোটি কণ্ঠে লু নাম করিয়| হুঙ্কার করিব,--এই ছয় কোটি দেহ তোমার জন্য পতন করিব--না পারি, এই দ্বাদশ “কোটি চক্ষে তোমার জন্য কাদিব। ‘“বন্দে মাতরম্‌”“বন্দে মাতরম্‌* ১৮৮২ সালে আনন্দমঠে প্রকাশিত হ্‌ইয়াছিল। দেশ সঙ্গে সঙ্গে এই মন্ত্র গ্রহণ করিয়াছে । দেশমাতৃকার অপরূপণ্রীমণ্ডিত ও দশপ্রহরণ- ধারিণী মাতৃমুত্তি দর্শন করিয়াছে ।প্রকাশের পর হইতেই “বন্দে মাতরম্‌” জাতীয় মহাসঙ্গীতের স্থান করিয়া ey) “সহুজলাং স্থফলাং মলয়জ-শীতলাং” সঙ্গীতের স্তর আকাশ বাতাস ভরিয়া দিয়াছিল। ইহার পর রবীন্দ্রনাথের আবির্ভাবে আবার দেশপ্রেমের সঙ্গীত আসিয়া Ae মন দখল করিতে আরম্ভ করিল ।সাহিত্যে উত্তেজনার ভাব ধীর মন্থর হইয়াছে এমন সময় আসিল ১৯০৫ সালে



Leave a Comment