আয় চাঁদ [সংস্করণ-১] | Aay Chand [Ed. 1]

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
দুইআমরা নূতন পৃথিবী গড়ছি। * লাঙল দিয়ে জমি চাষ করে যে ফসল ওঠে, তাতে শআামাদের পেট ভরেনা। আমরা কলের লাঙল চালাচ্ছি। জলের জন্য আর আকাশের দিকে চেয়ে থাকিনা। খাল কেটে জল আনছি প্রয়োর্জনমতে! | বাঁধ দিয়ে বন্যা রোধ করছে। নকল বৃষ্টিরও aay করছি। বৈজ্ঞানিকরা বলছেন, পৃথিবীতে বেড়াবার জায়গা ভালে নেই, টাদে কিংবা মঙ্গলগ্রহে অবকাশ যাপন করা দরকার। অনেকে সেখানে জমি কিনছেন পাকাপাকি বসবাসের Gal জগংটাই নূতন ইবে।পৃথিবীর সব দেশে আমরা উঠে-পড়ে লেগে গেছি। কেহ এগিয়ে গেছি, কেই পিছনে পড়ে আছি। সবার চোখে তবু একই স্বপ্ন আমর নূতন পৃথিবী AGA |কালী নদীর স্রোত ধরে আমরা ধীরে ধীরে উপরে উঠছি। তাবু ফেলেছি নদীর তীরেই। এই উপত্যকার অনেক জায়গাতেই এখন জরীপের কাজ হচ্ছে। কালীকেই প্রথমে বাঁধতে হবে। নেপাল আর পাঞ্জাবের সীমানা দিয়ে নামবার সময় মাঝে মাঝেই ক্ষেপে যায়। নিষ্ঠুর হয়ে ওঠে। ঘর্থরাকে শাসন করতে হলে আগে কালীকে সামলাতে হবে। তারপর রেলের লাইন বসবে, খোল) হবে তিব্বতের সঙ্গে ভারতের বাণিজ্য-পথ। ভারতবর্ষ থেকে মানুষ মানস-সরোবরে স্নান করতে যাবে বিদ্যুতের ট্রেনে চেপে, ফিরবে কৈলাস দর্শন করে।জনকয়েক চেনম্যান খালাসি নিয়ে আমরা দুজন সারভেয়ার আছি একসঙ্গে এই পার্বত্য অরণ্যের ভিতর। নিজেদের তাড়াতেই তাড়াতাড়ি৩



Leave a Comment