বৈষ্ণব সাহিত্য | Baishnab Sahitya

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
le/eনায়করূপে এবং তাহার যে শত্তিদ্বারা ব্রম্মাগুমাল| বিধৃত sem রহিয়াছে তিনিই atleast বা নায়িকারূপে বর্ণিত হইয়াছেন।বৈষ্ণব-সাহিত্য রস-দাহিত্য । রস-দাহিত্য বলিলে বুঝি--যে সাহিত্য রসময়, রসে ভরপুর । যাহা রসহীন তাহা সাহিত্য পদবাচ্যই নয়। রসই সাহিত্যের প্রাণ। রসাহভূতি আবার ভাবে অনুস্্যত। ভাব রসের আশ্রয় । KF পরস্পর রস ও ভাবে সাহিত্য ফুটিয়| উঠে-_ সাহিতোর স্ষ্টি হয়। অলঙ্কারশাস্ত্রে রসের যথে আলোচনা আছে | যাহা হইতে সৌন্দর্যের অভিব্যক্তি হয় তাহাকেই রস বলা যায়। এ- জগতে যাহা কিছু WHI তাহারই মূলে রস আছে। রস সৌন্দধয্যোপ- লক্ধির মূলীভৃত কারণ। আত্মাই সৌন্দধ্যোপলা্ধর মূলীভূত কারণ রস। উপনিষদের ভাষায় বলিতে পারা যায়--রসো বৈ সঃ ।রসোপভোগের GPE আত্মার বছত্ব। একত্বই বহুত্ব সম্বলিত জগতের মূলীভূত কারণ। আত্মার মধ্যে উপভোগের Swi থাকাতেই জগতের বৈচিত্র্য সম্পাদিত হইয়াছে। আত্মা জগৎ Ae করিলেন, তাহার উপভোগেচ্ছ| চরিতার্থ করিবার জন্য |আমরা দেখিতে পাই, জীবমাত্রই রসোপভোগের জন্য ব্যাকুল, এবং সকলেই সর্বক্ষণ রসের সন্ধানে faqs, সমস্ত জীবনটাই যেন রমানসন্ধান ছাড়া আর কিছুই নয়। BTA A WSS কোন প্রাণীই বাচিতে পারে না। কিন্তু এই এস কোথায় এবং কেন সকল জাঁব ইহার অন্য পাগল ? যখন রসের জন্য সকলেই পাগল তথন রসের WA যে Baws জানে, সে বিধয়ে কোন ম্ন্দেহ লাই । জীব যদি রসের AH না জানিত তাহা হইলে সে কখনই রসের জন্য এত লোলুপ হইত না। কিন্তু কেন সকলে ইহার জন্য পাগল--ইহার সমীচীন উত্তর এই যে, অপূর্ণতা! এবং অভাবই আমাদিগকে রসাঙ্গসন্ধানের



Leave a Comment