দুঃখিনী বর্ণমালা মা আমার | Duhkhini Barnamala Maa Amar

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
জীবন ভেঙে পড়েছে। কাক ডাকছিল, আর কোথাও থেকে ঝিরি পোকার কান্না ভেসে SPR সে জানাল TH করে রেখেছে, কারণ যে-কোন সময় মিলিটারি এসে বন্দুক দেগে চলে যেতে পারে। এবং সারাদিন পচ।৷ Ste গন্ধ উঠছে। উকিলপাড়ার আশে-পাশে কোর্ট-& ময়দানে কিছু লাস পড়ে আছে। দক্ষিণের হাওয়া, গন্ধটা শহরময় ছড়িয়ে দিচ্ছিল। হাতে তার চিঠি। সে যে কি করবে ভেবে পাচ্ছিল AL! আবুলের "মুখ ভেসে উঠছে। আবুলের একবার অসুখ হয়েছিল ৷ খুব ছোট আবুল । সে আর মিনু তখন একটা গ্রামের স্কুলে শিক্ষকতা করত। সেখান থেকে শহরে আসা যায় না। আবুলের বড় aye আবুলকে নিয়ে নৌকায় শহরে । দিন-রাত ওদের, না-ঘুমিয়ে থাকা, শিয়রে জেগে বসে থাকা, আবুল বাঁচবে না, সমসের দিন-রাত আবুলের জন্য ভেবে ভেবে Atal: fay চুপচাপ, সব ছুঃলময়েই fig চুপচাপ। আবুল ভাল হয়ে গেলে মিন্ুর চোখে সে এক আশ্চর্য মায়া দেখেছিল । এখন মিনুকে এমন বললে, ওর সেই চোখ দেখতে পাবে। দেখলেই ভিতরটা কেমন কেঁপে ওঠে। সে যে কি করবে, সে কেবল ঘরের ভিতর পায়চারি করছিল । এক রাত লেগে যাবে। সন্ধ্যায় রওনা হলে ওরা ভোর-রাতের face কাঠের বাক্সটা দন্দির বাজারে নামিয়ে দিতে পারবে। হাট-বার হলে aya: বোধহয় হাট-বার হবে না। সে দিলীপের কাছে সব জানতে পারবে | নদীর জলে নৌকা, ছপাশে বন অথবা গ্রাম পড়বে এবং মাঠের উপর এখন শুধু রোদ | রাতে গরম থাকবে Al তেমন | একটা ঠাণ্ডা, বাতাস সব কিছু ঠাণ্ডা করে রাখবে--আর আশে . পাশে সড়ক | সড়কে মিলিটারি, সাজোয়া গাড়ি । নানা! রকমের চেক-পোস্ট। সব নৌকা ওরা AE করতে পারে নাঙ্গলবন্দের ঘাটে । অথবা যা হয়, মাঝে মাঝে ফ্ল্যাশলাইট wear উঠলে নদীতে, আবুল ভয় পেয়ে যেতে পারে। লে আবুলকে নানা ভাবে এ'কদিন শিখিয়েছে সব কিছু | কারণ সে GIT সে এবং তারা আজ অথবা কাল কোন গঞ্জের সোয়ারি হয়ে যাবে |" ১৮



Leave a Comment