আচার্য্যের উপদেশ [খণ্ড-৯] [সংস্করণ-১] | Acharjyer Upadesh [Vol. 9] [Ed. 1]

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
আমার আচাধ্যপদে নিয়োগ ঈশ্বর eine: ৫দেওয়া যায় কি দেওয়া যায় না? অমুক পুস্তক পন্ডিব কি পড়িব না? অমুক কর্ম করিব কি করিব না? প্রথমতঃ ইা কি না এইটা শুনিবার বিষয়। ক্রমে জীবনে শ্রবণের ব্যাপার আরও প্রস্ফুটিত হইতে থাকে। অনেকে এইরূপে সাধন আরম্ভ করিলে ক্রমে আদেশ শুনিতে পায় cA যাহা হউক যখন এই ভার পাইলাম, এই স্থানে বসিলাম জানিলাম আর উঠিতে হইবে ay ঈশ্বর বখন বসাইলেন তখন মনুষ্য আর উঠাইতে পারে না । ক্রমে ঈশ্বর সেই সকল গুণ দিতে লাগিলেন, যাহাতে এ কাযধো্যের উপযুক্ত হওয়া যাইতে পারে। আমাতে উপযুক্ততা নাই, এই বলিয়া কি ঈশ্বরের কথা শুনিব না? যদ্দি তিনি আমায় আচাধো্যের কার্য দিলেন, তখন আমার সংস্কার যে প্রকার হটক না কেন, আমি কেন সন্কুচিত হইব? পথে ঘরে ছাদে Nata সঙ্গে কথা কহিয়াছি, তিনি যখন আমায় এ ভার দিলেন, তখন আমার নিকট ইহ! ঘরের কথা বলিয়া মনে হইল। যিনি আমায় প্রতিদিন wa বাঞ্জন দেন, তিনিই আমায় বেদীতে বসিতে বলিলেন, সুতরাং আমি ইহাকে ঘরের কথা মনে না করিয়া৷ আর কি মনে করিব? উপাসনার সময়ে তাঁহার সঙ্গে যেরূপ বারবার কথা বলিয়াছি, সেই কথাই সকলকে বলিব। সুতরাং ঘরের কথা বলিতে অরে সঙ্কোচ কি? আমি সাধারণও বুঝি না, গোপনও বুঝি না, যাহা বলিবার তাহা বলিব। আজ এই কথা বলিলাম ইহাতে ব্রাহ্মসমাজ যদি চুর্ণ হয়, চারিদিকে গ্লানি fami হয় হউক, আমি স্খ্যাতি অধ্যাতির মুখাপেক্ষা করিতে পারি না। আর সত্যকে গোপন করিলে চলে না।আমি যদি ব্রঙ্মের ভৃত্য হই, তাঁহার দ্বারা fage হই, তাহার



Leave a Comment