নানা চর্চ্চা | Nana Charcha

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
ভারতবর্ধের জিওগ্রাফি | ৫তিনটি মাত্র মহাদ্বীপ আছে £--প্রথম ইউ-রেলিয়া, দ্বিতীয় আফ্রিকা, তৃতীয় আমেরিকা। পগ্লোবের প্রতি একবার দৃষ্টিপাত করলেই দেখতে পাবে যে, গোটা ইউরোপ ও গোট! এসিয়ার ভিতর কোথাও জলের ব্যবধান নেই। এ দুই দেশের জমি একলক্ত । আর এই আদি মহাদেশটি হচ্ছে একটি প্রকাণ্ড দ্বীপ | এর উত্তরে Arctic Sea, দক্ষিণে Indian 0০:০৪7,পশ্চিমে Atlantic ও পূর্বে Pacific Ocean ; আর আফ্রিকার উত্তরে ও পশ্চিমে Atlantic এবং দক্ষিণে ও পূর্বে Indian Ocean; আর আমোরকার পশ্চিমে Pacific, re Atlantic, উত্তরে উত্তর-&:০৮০ ও দক্ষিণে দক্ষিণ- Arctic সাগর | চঃ018918-র সঙ্গে অপর ছুটি মহাদেশের STATS একট] স্পষ্ট প্রভেদ আছে | :4518"র বিস্তার পুব হতে পশ্চিমে, অপর ছুটির উত্তর হতে দক্ষিণে ! অর্থাৎ ইউরেসিয়া awa চাইতে চওড়ায় বেশি; আফ্রিকা! ও আমেরিকা! চওড়ার চাইতে লম্বায় বেশি। এই আকারভেদ একদেশের সঙ্গে অপর দেশের অনেক প্রভেদ ঘটিয়েছে।তোমরা সবাই জানে যে Eurasia ও আফ্রিকাকে আমরা প্রাচীন পৃথিবী বলি, ও আমেরিকাকে নবীন । এর প্রধান কারণ প্রাচীন পৃথিবীর লোক পাঁচ শ” বৎসর পুর্বে আমেরিকার অস্তিত্বের কথা জানত না। তবে এ নাম শুধু লৌকিক নয়, বৈজ্ঞানিক হিসেবেও ঠিক । এই নবীন পৃথিবীর জন্ম SoA পৃথিবীর পরে হয়েছে। শুধু তাই নয়, অনেক বিষয়ে এই নতুন পৃথিবী eola পৃথিবীর ঠিক উপ্টো। বিলাতে (Greenwich) যখন দিন দুপুর, অমেরিকায় (New Orleans) তখন রাতছুপুর । কেন এরকম হয়, সে কথা আর আজ বলব না; কারণ তা বোঝাতে হলে আমাকে মাটি থেকে আকাশে উঠতে হবে। এ ব্যাপারের ব্যাখ্যার ভিতর শুধু



Leave a Comment