কাব্যলোক [খণ্ড-১] [সংস্করণ-২] | Kabyalok [Vol. 1] [Ed. 2]

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
[ >> ]পাঠাথিগণ মূল cafes নিজের! উপলব্ধি করুন এবং শক্তি লাভ করুন। দ্বিতীয়, ভবিষ্যৎ কালে যাহারা গবেষণা বা আলোচনা করিবেন, তাহাদের শ্রমের লাঘব হউক, তাহারা মৌলিক চিস্তাগুলি এক গ্রন্থে লাভ করিয়| সহজেই অগ্রসর হইতে পারিবেম, ARNDT মত প্রসঙ্গ-পরিচয় দেখিয়| মূল-গ্রন্থের আলোচনাও করিতে পারিবেন |সমস্ত উদ্ধৃতিরই অনুবাদ দেওয়। হইয়াছে; যাহাদ্বের সংস্কৃতের অথবা ইংরেজীর সহিত পরিচয় অল্প, তাহাদেরও বিশেষ অন্বিধা হইবার কথা ay[HCG বছ অলঙ্কারগ্রন্থ আছে। বলা বাহুল্য, ইহাদের কতকগুলি গ্রন্থ চবিত- চর্বণ মাত্র; তাহাদের মৌলিকতা নাই, অথবা প্রাচীন চিস্তার নৃতন দৃষ্ট-ভঙ্গী ও নৃতন বিশ্যাস-ভঙ্গীও নাই। সেই জন্য এই গ্রন্থে কেবল মাত্র প্রামাণ্য মৌলিক গ্রন্থগুলির আলোচনা! করা হইয়াছে। Twa কথা কেহ কোথাও বলিয়া থাকিলে যতদূর জানা গিয়াছে, তাহা শ্রদ্ধার সহিত উল্লেখ sai হইয়াছে। একটি বিষয়ে অনেক উদ্ধৃতি দেওয়া সম্ভবপর হইলেও অনাবশ্যক ও অশোভন বলিয়। দেওয়া হয় নাই। পাশ্চাত্ত্য গ্রন্থসমূহ সম্বন্ধেও একই পদ্ধতি অবলম্বন Sai হইয়াছে । গ্রম্বকার ও গ্রন্থ এবং উদ্ধৃতির সংখ্যা কম রাবিবার চেষ্ট৷ করা হইয়াছে। একটি সার্থক উদ্ধৃতির পর অনেক ক্ষেত্রেই দ্বিতীয় উদ্ধৃতি দেওয়া হয় নাই |(৩) বিজ্ঞানের জগতের ন্যায় কাব্য-জগতেও অনেকগুলি সত্য সার্বজনীন, স্বদেশ ও সর্বকাল-মাধারণ, এমন কি বিভিন্নদেশে তাহাদের প্রকাণ-ভঙ্গীর আশ্চয সাদৃশ্তও বর্তমান । মেই জন্য অলঙ্কারশাস্ত্রেও প্রাচীন ভারতীয় ও গ্রীক্‌ আচার্যগণের সিদ্ধান্তের, এবং প্রাচীন ভারতীয় ও আধুমিক পাশ্চান্য্য আচার্ধযগণের সিদ্ধান্তের বিস্ময়কর মিল দেখিতে পাওয়া যায়। এই সত্য ও সিদ্ধান্ত গুলি atte: সাহিত্যের মৌলিক তত্বববিষযয়ক। আমরা প্রাচ্য ও পাশ্চাত্ত্য দেশের এবং অতীত ও বর্তমান যুগের সদৃশ স্থলগুলি পাশাপাশি স্থাপন করিয়৷ তুলন]-স্থত্রে আলোচ্য বিষয়কে স্পষ্টতর করিবার চেষ্টা! পাইয়াছি। আমাদের প্রাচীন অলঙ্কার-শাস্ত্রের অনেক অমূল্য রত্বের সন্ধান জানি না বলিয়| আমরা পাশ্চাত্ত্য দেশের আধুনিক বা প্রাচীন state হইতে সেই সকল আহরণ করিয়] থাকি, এবং সেই জন্য গৌরব-বোধও করিয়। থাকি | সংস্কৃত ভাষার ছুরধিগম্যতা থাকিলেও একাস্ত আত্মবিস্বতির ফলেই এইরূপ Wai সম্ভবপর হয়। যেখানে প্রয়োজন, সেখানে অবশ্য যে কোনও জাতি বা cy কোনও দেশ হইতে জ্ঞান আহরণ করা চলে। জ্ঞানের জাতিভেদ বা দেশ-ভেদ নাই; জ্ঞানী পুরুষগণ এই এক বিশাল পৃথিবীর অধিবাসী এবং নিখিল মানবজাতির মন্ডিঙক-স্বরূপ |



Leave a Comment