রাধিকাসুন্দরী [খণ্ড-১] | Radhikasundari [Vol. 1]

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
হাত হয়ে যেতে পারে, সেই হাতে হাত মিলিয়ে “হাঁটি হাটি পা পা” খেলতে খেলতে, হুবিধ অর্থহীন অব্যয়োচ্চারণে হাসতে হাসতে স্নেহে-আদরে পিঠ চাপড়ে চতুষ্পদকে দাড় করিয়ে দিলো তার স্বাভাবিক চার পায়ে এবং লতপত লতপত ভেজা কাপড়ে AP ভেঙে বসে সোহাগে সোহাগে জাপটে ধরল ভয়ঙ্কবকে, এবং বসে পড়ার পর যখন চার পায়ের জানোয়ারই দু-পায়ের যুবতীরও মাথা ছাপিয়ে উচ্চতায় দীর্ঘতর, অকুতোভয় সেই মেয়ে নিবিড় আলিঙ্গনে ওকে জড়িয়ে নিতেই তাব দু'টো হাত পৌঁছে যায় ছাই রঙের রোমশ শরীরের প্রলম্বিত শিরদাডায়াবী হাতটা স্থির থাকে৷ ডান হাত আদর IH! প্রবল পশুশক্তি লোহার শিকল ছিঁড়ে ফেলতে পাবে এক্ষুনি, কিংবা এসব আদব-সোহাগে কিছুমাত্র আমল না দিয়ে কামড়ে দিতে পারে যুবতীরই হাত অথবা যখন CF HCA CVE ঘেউ প্রবোধ মানছে না কিছুতেই, বুঝি প্রযোজন ছিল -_“থাম, থাম তো তুই...” *সজোরে একটা থাপ্পড় মেরে দেবার দুর্জয় সাহস কত অনায়াস হতে পারে! Rol বা এই শাসনটুকুই অত্যন্ত জরুরি ছিল। পরাক্রান্ত বাঘা কিছুটা শান্ত হয়ে দাঁড়াবাব পর বাধা নামেব সেই যুবতী মেঝেতে আবো বেশি লেপটে বসে নিজেব গালের সঙ্গে বাঘাব গাল মেলাল। নিজের কানে গালে ওর ঝুলে-থাকা কানের লতি, ওর গলার শেকল, ওব মসৃণ লোমেব শিবশিব। জলে জলে ভেজা গৃহপালিত এবং গ্ৃহপোষ্য দু'জনই এক AY আশ্লেষে একীভূত হয়ে যাবাব পব, নিশ্চিত জানোয়ার বলেই হয়তো এতটা নেমকহারাম-যুবতীর কাধেব ওপর দিয়ে গলা বাড়িয়ে একই ভঙ্গিতে বিরতিহীন কর্কশ চিৎকারে শাসাতে থাকে ভাত-শেকলেব মালিকদেরই। ভয়াবহ্‌ শ্বাপদদর্শন, যার TERE বা বেযাদপলিব কোনো কিছুতেই খুব একটা ভবসা পাচ্ছিলেন না কিরণময়ী।কন্যাবা নির্ভয়-'হাউ টেরিফিক ইট লুকস! আওয়াব টাইগার!“ডোবারম্যান ইজ এ ওযনম্যান ডগ। হি aie হিজ swayদু-বোনই যখন তাদেব সহাস্য কৌতুকে উচ্ছল, আবো একবাব ঝামটে উঠতে চেয়েছিলেন কিরণময়ী। সামনেই আবাব এক ভূতের চেহারা দেখে চমকে উঠলেন -“এ FF! এ-কী দশা হয়েছে তোমার? ছাতা নাওনি সঙ্গে?'“বাইরে কী যে জল হচ্ছে গ মা। একটা ছাতায কী আর আটকানো যায়। এগোনোই যাচ্ছে না বাস্তায়...একটা ছাত৷ অবশ্যই সঙ্গে ছিল। কিন্তু অল্পবিস্তব সর্বাঙ্গেই ভিজেছে নন্দলাল। বিশেষত a> ale টানা ধুতি এবং নিশ্নাঙ্গেব পুবোটাই ভিজে ন্যাতান্যাতা। পঞ্চাশোধর্ব CONG WTA! খাটো একটা গামছা FCA) উদোল গায়ে ঠান্ডা কাপুনিও হয়তো কিছুটা।কিবণময়ী Wyre হলেন-“যাও বাপু, তুমি যাও। পা-দুটো কলতলায় ভালো করে ধ্যে এসো SICA! কী কাদাফাদা নিয়ে এসেছ বলো দেখি। ঘরদোব ce তোমরাই নষ্ট কবে দেবে সব। খবদ্যার, পা না ধুয়ে ওপরে যাবে না তুমি। আর হ্যা, যার aon গিয়েছিলে, তার নী হলো? রিকশ ট্যাকসি...''সে-ত কিছু compa নি গ মা। কিছু পাওয়া যাচ্ছে নি রাস্তয়...'হ্যা, সে-শুধু তোমারই পাও না। বৃষ্টি হচ্ছে বলে ঘরেই বসে আছে সবাই। কেউ১৮



Leave a Comment