বিদেশীয় ভারত-বিদ্যা পথিক | Bideshiya Bharata-vidya Pathik

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
[ ত]আপেক্স্ন্দার হ্যামিলটন নামে একজন ইংরেজ সেনানী ভারত হইতে স্বদেশে প্রত্যাবর্তনের পথে ফরাসীদের হাতে ধরা পড়েন। ইনি উত্তমরূপে eae ভাষা জানিতেন । বন্দী অবস্থায় ইহার Paris এ বাসকালে ইনি বছ ষউরোপীয় পণ্ডিতকে সংস্কৃত শিক্ষা দান করেন। Beta একজন জার্মান fry Friedrich Schlegel প্লেগেল ১৮০৮ খ্রীষ্টাৰে Ueber die Sprache und Weisheit der Inder (ভারতীয়গণের Sta! ও তাহাদের জ্ঞান বিজ্ঞান ) নামে একটি পুস্তক রচনা করেন। ১৮:৬ খ্রীষ্টাব্দে জার্মান পণ্ডিত Franz Bopp বোপ.. MASA সমূহের তৃলনামূলক ব্যাকরণ সম্বন্ধে তাহার প্রথম FES প্রকাশ করেন।এই ভাবে ধীরে ধীরে ইউরোপে 01101001085 বা প্রাচ্য বিদ্যা, এবং বিশেষ ভাবে Indology বা ভারত-বিদ্যার প্রবর্তন হইল। ইউরোপীয় বা আধুনিক পদ্ধতি, অর্থাৎ এঁতিহাসিক ও তুলনামূলক পদ্ধতিতে ভারত-বিদ্যার চর্চ। প্রথমে ইউরোপীয় পণ্ডিতদের woe সীমাবদ্ধ ছিল। অপ্শতকের মধ্যে ভারতীয় পণ্ডিতেরাও এই পদ্ধতির সন্ধান পাইয়া নিজেদের নষ্ট-কোঠী উদ্ধারের জন্য ইউরোপীয় পণ্ডিতদের পাশে আসিয়া দাড়াইলেন ; এবং এই উভয় শেণীর পণ্ডিতদের সহযোগিতায় ও মিলিত চেষ্টায় ভারতের সংস্কৃতি ও ইতিহাস nS পূণ গবেষণার ধারা স্নপ্রতিষ্ঠিত হইল |বিশ্ব-সংস্কৃতির ইতিহাসে এই 17000108108] Research-aq একটি বিশেষ গুরুত্ব-পুণ স্থান আছে। Indology বা ভারত-তত্ত্বের কথা এখন কেবল ভারতেরই জনগণের আত্ম-সমাীক্ষা বা জ্ঞান-বুদ্ধির জন্য নহে, ভারতের ংস্কৃতির নৃতন মূল্যায়নের সঙ্গে HCH ইহার প্রতিষ্টা ও প্রভাব বিশ্বমানবের মনেও গভীর রেখাপাত করিতেছে। এই বিদ্যার আলোচনায় যাহার] ইহার পথিকৃৎ ছিলেন এবং যাহারা নানা দিকে ইহার সম্প্রসারণে ও পরিবর্ধনে অংশ গ্রহণ করিয়াছেন, তাঁহাদের পূর্ণ অবদানগুলি ভারতের শিক্ষিত জনের পক্ষে নিতান্ত উপযোগী আলোচনার ক্ষেত্র। নিবিষ্ট চিত্তে অধ্যয়ন করিলে, ইইাদের সবলের কৃতি হইতে ভারতের সংস্কৃতির ইতিহাস কি afar পদক্ষেপের পর পদক্ষেপ অবলম্বনে গড়িয়৷ উঠিয়াছে তাহা আমরা বুঝিতে পারিব। মানসিক সংস্কৃতির অনুরাগী প্রত্যেক ভারতীয় শিক্ষিত জনের নিকট এই আলোচনা অতি মূল্যবান্‌ UTI |বিশেষ আনন্দের কথা, স্থলান্ছিত্যিক ও সাংবাদিক শ্রীগৌরাঙ্গগোপাল



Leave a Comment