বিশ্বের বিজ্ঞানী | Biswer Bigyan

বই থেকে নমুনা পাঠ্য (মেশিন অনুবাদিত)

(Click to expand)
সদ্ব্যবহার করলেন একখানি উপন্যাস লিখে। কয়েক বছর পরে সেই উপস্কযাসখানি প্রকাশিতও হলে! |অনেক জায়গায় বদলী হওয়ার পর ১৮৮৭ সালে ডক্টর রস আবার ফিরে এলেন মাদ্রাজে। দেখতে দেখতে চাকরি জীবনের প্রথম ছ'টি বছর গেলে! কেটে | দেশে বেড়াতে যাবার @rw ছুটি প্রার্থনা করলেন রস। ছুটি মঞ্জুর হলো। ১৮৮৮ সালের জুন মাসে ছুটি কাটাতে তিনি Raye রওনা হলেন |ছুটিতে রম দু'বছর রইলেন Bare । ছুটির বছর ote তিনি কিন্তু শুয়ে-বসে বা বেড়িয়ে কাটালেন না। পড়াশুনা ক'রে জন- স্বাস্থ্যের উপর ডিপ্লোমা! ল।ভ করলেন | রস মনে করলেন-_তার এই বিষয়ের জ্ঞান ভারতের জনস্বাস্থ্য উন্নয়ন প্রকল্পের সহায়ক হবে | এই জ্ঞান তিনি ভারতভবাসীদের স্বাস্থ্যোন্নয়নে প্রয়োগ করতে পারবেন |ফরাসী বিজ্ঞানী লুই পাস্তর এবং জামান বিজ্ঞানী রবার্ট কখ.- এর আবিচ্কাবের কাহিনী শুনেছিলেন রস। এই দুই বিজ্ঞালী প্রমাণ করেছিলেন যে জীবাণু থেকেই রোগের উৎপত্তি sai রোগ উৎপত্তির এই তত্ত্ব তরুণ চিকিৎস! বিজ্ঞানী ডক্টর রসের মনে গভীরভাবে রেখা- পাত করেছিল।তখন ও পধনস্ত মানুষ জানতো না -কিভাবে ম্যালেরিয়া] «রাগ সমষ্টি হযয়। তখনকার দিনের চিকিৎসা বিজ্ঞানীর! মনে করতেন যে জলাভূমির দূষিত বায়ূ সেবনই ম্যালেরিয়া রোগ উৎপত্তির কারণ |লুই পাস্তর ও রবাট কখ.-এর আবিচ্কারের কাহিনী শোনার পর ডক্টর রস-এর দৃঢ় বিশ্বাস জন্মালো যে ম্যালেরিয়া রোগটাও নিশ্চয়ই জীবাণু দ্বারা সংক্রামিত হয়! অজানা সেই জীবাণগুদের খুজে বের করার SS গ্রহণ করলেন ডক্টর রোনাল্ড রস ৷ছু'বছরের ছুটি প্রায় শেষ হয়ে এলো । রস ছুটির মধ্যেই বিয়ে করলেন। তারপর নববধূকে নিয়ে ভারতে ফিরে এলেন ১৮৯১৬



Leave a Comment